পৃথিবী থেকে বিচ্ছিন্ন হচ্ছে চীন, ফ্লাইট বন্ধের হিড়িক…

চীনের উহান প্রদেশ থেকে ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী নতুন করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে আতংকিত সারাবিশ্ব। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে দ্রুত গতিতে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় বিশ্বব্যাপী স্বাস্থ্যগত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্যসংস্থা।

চীন ছাড়াও বিশ্বের ২১টি দেশে এই ভাইরাস সনাক্ত হয়েছে। এরই মধ্যে, বিভিন্ন দেশের প্রায় অর্ধশত বিমান পরিবহন সংস্থা তাদের চীনগামী ফ্লাইট বাতিল করেছে। একদিনের ব্যবধানে বৃহস্পতিবার ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দেশটিতে ঝড়ে গেছে আরো ৪২টি প্রাণ। এই নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২শ’১৩ জনে। আর, আক্রান্তের সংখ্যা সাড়ে নয় হাজার ছাড়িয়েছে।

ভাইরাসের সর্বোত্তম প্রতিরোধ করতে আন্তর্জাতিক বিমান সংস্থাগুলি একের পর এক চীনের মূল ভূখণ্ডে তাদের ফ্লাইট স্থগিত করছে। যেহেতু উড়োজাহাজ ভাইরাস মহাদেশ জুড়ে ছড়িয়ে পড়ার অন্যতম দ্রুততম মাধ্যম, তাই বেশ অনেকগুলো আন্তর্জাতিক বিমানসংস্থা তাদের কিছু বা সকল চীনে ফ্লাইট বাতিল করেছে।

তবে এখনও পর্যন্ত মধ্যপ্রাচ্যের বিশ্বখ্যাত বিমানসংস্থা পক্ষ থেকে ফ্লাইট বন্ধ রাখার কোন সিদ্ধান্ত আসেনি। ভারত, পাকিস্তানের বিমান বন্ধ ঘোষণা করা হলেও বাংলাদেশ এখনও কোন সিদ্ধান্ত নেয় নি। বাংলাদেশের বেসরকারি বিমানসংস্থা ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্স গুয়াংজু রুটে চলাচল করে।

চীনের সবগুলো প্রদেশ ছাড়াও বিশ্বের ২১টি দেশে এই ভাইরাস সনাক্ত হয়েছে। এরমধ্যে যুক্তরাজ্যে সনাক্ত হয়েছে ২ জন, যারা একই পরিবারের সদস্য। তাদেরকে বিশেষ পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। ইতালিতে ২ জন সনাক্ত হওয়ার পর, সেখানে জরুরী অবস্থা জারি করেছে দেশটির সরকার।

এদিকে, করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ৪৩টি বিমান সংস্থা তাদের চীনগামী ফ্লাইট বাতিল করেছে। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম জানায়, ব্রিটিশ এয়ারওয়েস, এয়ার কানাডা, ইউনাইটেড এয়ারলাইনসসহ বেশ কয়েকটি নামকরা এয়ারলাইনস সাময়িকভাবে তাদের ফ্লাইট বাতিল করেছে। অন্যদিকে, চীন থেকে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় বিশ্ববাজারে বড় ধরনের ধাক্কার আশঙ্কা করছেন বিশ্লেষকরা।

যেসব বিমানসংস্থা চীনে ফ্লাইট বাতিল করেছে তার হল- ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ, লুফথানসা গ্রুপ, এয়ার কানাডা, কেএলএম, এয়ার ফ্রান্স, এয়ার ইন্ডিয়া, আমেরিকান এয়ারলাইন্স, এয়ার সিওল, ভারতের ইন্ডিগো, ইজিপ্ট এয়ার, হংকং এয়ারলাইন্স, ইজিপ্ট এয়ার, এশিয়ানা এয়ারলাইন্স, লায়ন এয়ার, ইভা এয়ার, ডেল্টা এয়ারলাইন্স সহ অন্যরা।

ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ: বুধবার ( ২৯ জানুয়ারি) হংকংকে বাদ দিয়ে চীনের মূল ভূখণ্ডের গন্তব্যেগুলোতে উড়ান স্থগিত করে। প্রথম বৃহত্তম আন্তর্জাতিক বিমানসংস্থা হয়ে ওঠে যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র দফতর সকল নাগরিককে প্রয়োজন ছাড়া চীন ভ্রমণ না করার পরামর্শ দেওয়ার পরে এই সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে দেশটির রাষ্ট্রীয় বিমান সংস্থাটি।

লুফথানসা গ্রুপ:

এর পরে জার্মানির বৃহত্তম ও ইউরোপের দ্বিতীয় বৃহত্তম বিমানসংস্থা লুফথানসা গ্রুপ (লুফথানসা, সুইস এবং অস্ট্রিয়ান এয়ারলাইনস) বৃহস্পতিবার থেকে চীনের মূল ভূখণ্ডে যাতায়াতকারী সমস্ত ফ্লাইট স্থগিত করে।

এয়ার কানাডা:

বেশ কয়েক ঘন্টা পরে, এয়ার কানাডাও হংকং বাদে চীনে উড়ান স্থগিতের ঘোষণা দেয়। কানাডার জাতীয় বিমানসংস্থাটি বোয়িং ৭৮৭-৯ ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজ দিয়ে চীনের পাঁচটি গন্তব্যে যাতায়াত করে। ফ্লাইট স্থগিত করে টিকেটের পুরো অর্থ ফেরতের অফার দিয়েছে তারা।

এয়ার ফ্রান্স:

বৃহস্পতিবার (৩০ শে জানুয়ার) দুপুরে এয়ার ফ্রান্স হংকং বাদে চীনা গন্তব্যে সমস্ত ফ্লাইট স্থগিতের ঘোষণা দেয় ।

এয়ার ইন্ডিয়া:

চীনের প্রতিবেশী ভারতের রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন এয়ার ইন্ডিয়া হংকংয়ের জন্য তার ফ্লাইটের পরিমাণ হ্রাস এবং এই ফ্লাইটের ক্রুদের প্রতিরক্ষামূলক মুখোশ পরতে এবং সরাসরি বাড়ি ফিরে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত সাংহাইয়ের ফ্লাইটগুলি পুরোপুরি স্থগিত করেছে।

ইউনাইটেড এয়ারলাইন্স:

শিকাগো-ভিত্তিক যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান বিমানসংস্থা ইউনাইটেড এয়ারলাইন্স চীনের পরিষেবায় ২৪ টি ফ্লাইট স্থগিত করছে।

আমেরিকান এয়ারলাইন্স:

বিমানসংস্থাটি যুক্তরাষ্ট্রের পশ্চিম উপকূল থেকে চীনের সাংহাই এবং বেইজিংয়ের উদ্দেশ্যে যাত্রা করে। তবে এই বিমানগুলি এখন স্থগিত করা হয়েছে।তবে, ডালাসে আমেরিকান এয়ারলাইন্স হাবা থেকে এই দুটি শহরে ফ্লাইট একনও অব্যাহত রাখা হয়েছে রয়েছে।

এশিয়ানা এয়ারলাইন্স:

কোরিয়ান সংস্থাটি চীনের গিলিন, চাংশা এবং হাইকৌয় রুটে পরিষেবা বন্ধ করছে।

এয়ার সিওল:

দক্ষিণ কোরিয়ার এই বিমানসংস্থাটি চীনের ঝাংজিজিজি রুটে তিনটি এবং লিনি রুটে দুটি সাপ্তাহিক ফ্লাইট চালায়, উভয়ই রুটই স্থগিত করা হয়েছে।

এয়ার তাঞ্জানিয়া:

এয়ার তানজানিয়া বোয়িং ৭৮৭ ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজ দিয়ে তার দেশের রাজধানী দার এস সালাম থেকে চীন রুটে উদ্বোধনী বিমান শুরু করার পরিকল্পনা করছিল। তবে, এই এখন অনির্দিষ্টকালের জন্য পিছনে ঠেলে দেওয়া হয়েছে।

ইজিপ্ট এয়ার

মিশরের ইজিপ্ট এয়ার ১ ফেব্রুয়ারি থেকে চীনে রুটের সকল ফ্লাইট স্থগিত করেছে। হোয়াংজহু লাইটগুলি ১ ১ ফেব্রুয়ারিতারিখে এবং তারপরে গুয়াংজু ও বেইজিংয়ের ফ্লাইটগুলি ৪ ফেব্রুয়ারি থেকে স্থগিত হবে। পরবর্তী বিজ্ঞপ্তি না হওয়া পর্যন্ত স্থগিতাদেশ স্থায়ী বলে জানানো হয়েছে ।

অস্ট্রিয়ান এয়ারলাইন্স

ভিয়েনা ভিত্তিক এই বিমানসংস্থা চীনের রাজধানী বেইজিং এবং সাংহাইকে সেবা দেয়, তবে এটি আগামী মাসের শেষ পর্যন্ত এই পরিষেবাগুলি বন্ধ রাখছে। এটি কেবল আজ এই কাটাগুলি নিশ্চিত করেছে।

হংকং এয়ারলাইন্স

ভাইরাস-নিয়ন্ত্রণের প্রচেষ্টার প্রতিক্রিয়া হিসাবে মার্চ মাসের শেষের দিকে মূল ভূখণ্ডে প্রায় অর্ধেক করে ফ্লাইটের সংখ্যা কমিয়ে দিচ্ছে।

ভারতের ইন্ডিগো

ভারতের জনপ্রিয় বিমানসংস্থা ইন্ডিগো চীনের চেংডু এবং হংকংয়ের পরিষেবা স্থগিত করছে। তবে, কলকাতা থেকে গুয়াংজুতে এর অপারেশন প্রভাবিত হয়নি।

জেটস্টার এশিয়া

সিঙ্গাপুরের সংস্থা জেটস্টার এটির হেফেই, গুইয়াং এবং জুঝৌয়ের ফ্লাইট বাতিল করছে। এই স্থগিতাদেশ ৩০ জানুয়ারি থেকে মার্চ শেষ পর্যন্ত চলবে।

চীনের বাইরে ৯০ টিরও বেশি দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। কাজেই সন্দেহ নেই যে পরবর্তী কয়েক দিন ধরে বিমানসংস্থাগুলোর ফ্লাইট বাতিল করা অব্যাহত রাখবে।

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *